Akhi almgir xxx speed dating email follow up

Posted by / 09-Apr-2020 19:11

Akhi almgir xxx

সেদিন সকালে আমার ঘুম ভেঙ্গেছিল সকাল সাড়ে আটটায়। আমার যতটুকু মনে পড়ে হলের জীবনে আমি কোনদিন একটু শান্তি মত ঘুমাইতে পারি নাই। ন’টার বেশি তো কোন দিনই না। ঐদিন এমনিতেই বাহিরে কি একটা বিষয় নিয়ে পোলাপাইন বেশ হাউকাউ লাগাইছিল। তারপর উপর রুমের দরজাটাও খোলা ছিল। আবার এদিকে ছিল রুমের ছোট ভাইটার অত্যাচার। ও তখন ফার্স্ট ইয়ারে ছিল । যতক্ষণ সে রুমে থাকত ততক্ষণ ঘটঘট করে পড়ত । পুরা রুম ফাটায় ফালাইত। কত বুঝাইছি ওরে, “ভাইয়া, একটু আস্তে আস্তে পড়।” কিন্তু কার কথা কে শুনে। ওর নাকি জোরে জোরে না পড়লে পড়া মুখস্ত হয় না। আরে ভাই আমরা কি পড়ি নাই?

এত্ত আওয়াজ তো করি নাই। এই কথাগুলা ওর কানের পাশ দিয়াও যাইতো না। মাঝে মাঝে ইচ্ছা হইতো তুইলা একটা আছাড় দেই। কিন্তু পরে আর দেয়ার দরকার হয় নাই। কারণ ওর ঘটঘটানি বন্ধ করার একাটা সুন্দর উপায় বের করেছিলাম।আমি বিছানায় শোয়া থেকে উঠে বসলাম । আমাকে উঠতে দেখে,শাওন,আমার রুমের সেই ছোট ভাই বলল, “ ভাইয়া,ঘুম ভাঙল?

”–না,না, আমি এত গুলা খেতে পারবো না। আমি শুধু কাস্টার্ডটা আর নুডুলসটা খাবো।–ঠিক আছে,আগে শুরু কর না। বাকিটুকু পরে দেখা যাবে।খেতে খেতে জানলাম আংকেল বাসাতে আসবেন পনের দিন পর। এই কয়দিন ও বাসাতে একাই। আরও জানলাম আমাকে ওর সাথে প্রায় দুইদিন আর তিন রাত থাকতে হইতেছে।সন্ধ্যায় আমি সপ্নার রুমে খাটে শুয়ে শুয়ে টিভি দেখছিলাম। ও কিচেনে রাতের খাবার বানাচ্ছিল। ওর রুমটা অনেক সুন্দর করে সাজানো গুছানো। দেখেই বুঝা যায় একটা মেয়ের রুম। ডাবল বেডের বক্স খাট। খাটটা আবার অনেক নরম ছিল। শুইলে পুরা শরীর ঢুকে যায়। বিছানার সামনে একটা সিঙ্গেল কাউচ রাখা। সেটার পাশে আবার একটা হোম থিয়েটার। দেয়ালে রেক্টিংগুলার প্লাজমা টিভি। ২৭ ইঞ্চি হবে মনে হয়। তখনও এই গুলা আমাগো দেশে খুব প্রচলিত ছিল না। আংকেল মাঝে মাঝে বিদেশ গেলে নিয়ে আসতেন । ওর রুমের ডান দিকে মানে পূর্ব দিকে একটা বড় ব্যলকনি ছিল আর থাই গ্লাসের বিশাল জানালা। ওদের ফ্ল্যাটটার সবচেয়ে সুন্দর রুম মনে হয় সপ্নারটাই। রুমের ডিস্টেম্বারের সাথে ম্যাচ করে হালকা গোলাপি রঙের পর্দা লাগান হয়েছিল জানালাতে। পর্দা গুলা আবার খুব মোটা। বিছানার চাদরও হালকা গোলাপি কালারের ছিল। একটা এ.সি ও লাগানো হয়েছিল। যেটাকে ওর রুমে কিছুটা বেমানান লাগছিল । ব্যলকনি,জানালার পর এ.সি’র কোন দরকারই ছিল না। হয়ত ওটাও একটা বিলাসিতা ছিল।একটু পর ও এসে বলল, “বুজলা, বাসাতে বুয়া নাই। এজন্য সবকিছু নিজের হাতেই করতে হইতেছে। তোমারে সময় দিতে পারতেছি না।” আমি কিন্তু bore হইতেছিলাম না। তারপর বলল, “চা খাবা নাকি কফি?

”আমি বললাম, “চা ই দাও। Deep sugar with light liquor.”–“ঠিক আছে,আমি আনতেছি। তারপর দুইজনে মিলে গল্প করবো।” এই বলে ও চা আনতে গেল।আমি স্পোর্টস চ্যানেল গুলা খুজতেছিলাম। HBO Cross করার সময় দেখলাম, টাইটানিক দেখাইতেছে। আমি HBO তে একটু hold করছিলাম। ঠিক ঐ মুহূর্তে সপ্না চা এর মগ হাতে এসে ঢুকল। টিভিতে চোখ দিয়েই চিৎকার করে হাত নাড়তে নাড়তে বাচ্চা মেয়েদের মত বলে উঠল, “টাইটানিক, টাইটানিক আমি দেখবো, আমি দেখবো।” তার হাতে যে চা আছে সেটার কথা সে একদমই ভুলে গেল। ফলে যা হবার তাই হল। খানিকটা চা পড়ে গেল নিচে।চা খাওয়া হলে আমরা দুইজন এক কাঁথার নিচে লাইট নিভিয়ে জড়াজড়ি করে মুভিটা দেখলাম। কাঁথাটা কিভাবে আসল সেটা একটু বলি। মুভিটা দেখার জন্য নাকি খুব রোমান্টিক পরিবেশ লাগে। সপ্নার কথা। তাই সে তখন এ.সি’তে রুম টেম্পারেচার ২০ ডিগ্রী তে সেট করে দিল। ওর বক্স খাটের ড্রয়ার থেকে একটা কাঁথা বের করে গায়ে দিয়ে আমাকে জড়িয়ে পুরো মুভিটা শেষ করল। আমিও খুব এনজয় করেছিলাম মুভিটা। টাইটানিক আগেও দেখছি এই ঘটনার পরেও দেখছি। কিন্তু ঐ বারের মত মজা পাই নাই।মুভিটা শেষ করে সাড়ে ন’টার দিকে আমরা খেতে বসলাম। ও কাচ্চি বিরানী রান্না করছিল । অনেক মজা হয়েছিল। খেয়েছিলামও প্রচুর। সপ্না কথায় কথায় বলল ওর আব্বু নাকি রেড সেভেন এনেছে। আর সেটা তখন ওদের ফ্রিজেই ছিল। আমি শুনে তো খুশি। যাক অনেক দিন পরে খাওয়া যাবে। খাওয়া শেষ করে আমরা ফ্রিজ থেকে ওয়াইনের বোটল আর গ্লাস নিয়ে সপ্নার বেডরুমে গিয়ে বসলাম। দুজন মিলে গল্প করছিলাম। তখন বাজে সাড়ে দশটার মত। হঠাৎ কথা উঠল সেক্স নিয়ে ।–আচ্ছা,রিশাত,তুমি কি পর্ণোমুভি দেখ?

সাথে সাথে আমি এটাচড ওয়াশরুমে গেলাম। খুজতে গিয়ে শ্যাম্পু, কন্ডিসনার, পেস্ট, ব্রাস, পারফিউম, বডি স্প্রে, হেয়ার অয়েল, অলিভ অয়েল হেন তেন বহুত কিছুই ছিল কিন্তু শুধু ডিলডোটা পাচ্ছিলাম না। কেন জানি খুব হতাশ লাগছিল। আমি পাগলের মত খুঁজতে লাগলাম। কিন্তু পাচ্ছিলাম না। একটু পর বুঝলাম আমার মাথা গরম হয়ে যাচ্ছে। নিজেকে বোঝালাম মাথা গরম করলে পাওয়া যাবে না। তাই মাথা ঠাণ্ডা করে ভাবতে লাগলাম এমন একটা সেক্স টয় আমি কোথায় রাখতাম?

ভাবতেই মাথায় এল হাতের কাছে বেড সাইড টেবিলটাতে। আমি ওয়াশরুম থেকে বের হয়ে গেলাম বেড সাইড টেবিলটার কাছে। ওটায় তিনটা ড্রয়ার ছিল। আমি প্রথমটা টান দিলাম। কিন্তু পেলাম না। কিসব হাবিজাবি ছিল । অন্ধকারে ভালো করে খেয়াল করতে পারি নাই । দ্বিতীয়টা টান দিলাম। সেটা মনে হয় খালিই ছিল। তৃতীয়টা টান দিলাম কিন্তু খুলল না। সাথে সাথে আমার বুকটাও ধক করে উঠল। আমি ভাবলাম হয়ত তালা দেয়া, আর যদি তাই হয় তাহলে হয়ত সপ্নাকে আজকে হতাশ হতে হবে অথবা আমাকে রিস্ক নিতেই হবে। কিন্তু আমি আবারও একটা টান দিলাম । খুলল না । তৃতীয়বার একটু লুজ দিয়ে আবার একটা টান দিতেই হঠাৎ করে খুলে গেল। ঐ ড্রয়ারটাতে অনেক জিনিস ছিল। এজন্যই খুলছিলো না। আমি খুঁজতেই একটা ডীলডো আর ভাইব্রেটর পেয়ে গেলাম। আমি এর আগে কখনও ডিলডো দেখি নাই। কিন্তু ঐ প্রথমবার দেখে পুরা তাজ্জব বনে গেলাম। জিনিসটা একটা বাড়ার মত। আবার একটা ভাইব্রেটরও আছে যেটাতে একটা কম্পন তৈরি হয়। পুরা বাস্তব ফিলিংস করার জন্য যা যা দরকার সব কিছুই আছে ঐ টয় টাতে। মেয়েদের এত্ত সুবিধা দেখে আমার পুরা ছেলে জাতির জন্য খারাপ লাগছিল। যাই হোক,আমি দ্রুত ডিলডো হাতে ওয়াশরুম থেকে অলিভ অয়েলটা নিয়ে সপ্নার কাছে আসলাম। এসে দেখি সপ্না চোখ বন্ধ করে শুয়ে আছে। আমি ভাবলাম ঘুমিয়ে গেছে। কিন্তু পরে টের পেলাম ও আসলে তখনও Climax এ ছিল। আমার ডিলডোটা খুঁজে আনতে সময় লেগেছিল প্রায় পনেরো,বিশ মিনিটের মত। এর মাঝেও যে ওর Climax ছিল এটা আমার জন্য বিশ্বাস করতে একটু কষ্ট হচ্ছিল। তারপর আমি ওকে চিত করে বুক নিচে আর পিঠটাকে উপরে দিয়ে শুইয়ে দিলাম। খানিকটা অলিভ অয়েল হাতে নিয়ে ওর ঘাড়ে,পিঠে মাসাজ করতে থাকলাম। একবার শুধু ওকে বললাম, “ভালো লাগছে?

আমি খেঁচলে তো একটা বোটল এর মুখাও ভরে না।–তখন তো আর আমি থাকি না। যাকে দেখে তুমি হান্ড্রেড পারসেন্ট এক্সাইটেড হবা।ও বসা থেকে আবার আমার পাশে শুয়ে পড়ল। মনে হয় টায়ার্ড হয়ে গিয়েছিল। তাই রেস্ট নিচ্ছিল। কিছুক্ষণ চোখ বন্ধ করে শুয়ে রইল। আর আমি পুরো পরিবেশটা এনজয় করছিলাম। একটু পর বলল, “আমাকে দেখবা না?

”–আমি আগেই তো কইলাম It’s up to you ।ও উঠে বলল, “উঠে বস।” আমি উঠে বসলাম। ঠিক বসলাম না,বাম হাতটা উপরে রেখে ডানকনুই এর উপর ভর দিয়ে আধ শোয়া হয়ে রইলাম। ও উঠে গিয়ে বিছানার ডান পাশে গিয়ে ডিম লাইটটার ঠিক নিচে দাঁড়ালো। হালকা গোলাপি আলো এসে ওর উপর পড়ছিলো। আর ওর চুলে সেটা যেন রিফ্লেক্ট করছিল। ওকে তখন সত্যিকারের সুন্দরী মনে হচ্ছিল আমার কাছে। আমার দিকে তাকিয়ে একটু হেসে মৃদু স্বরে বলল, “তোমার কাছে নারীর সংজ্ঞা কি আমি সেটা জানি না। তবে যতটুকু তোমাকে চিনেছি তাতে তোমাকে অনেক ভালো একটা মানুষ মনে হয়েছে। প্রতিটা ছেলের কাছেই ‘মেয়ে’ নামক শব্দটা একটা ফ্যন্টাসি থাকে। তোমার কাছেও এটা ফ্যন্টাসি আমি জানি। অনেক ছেলেরাই মেয়েদেরকে ভুল বুঝে। তোমার ধারণা কি সেটা আমি জানি না, আজকে আমি তোমার কাছে শুধুই আমি না, আমি তোমার কাছে পুরো নারী জাতিকে রিপ্রেজেন্ট করছি। ধরে নাও এটা আমার প্রতি তোমার ভালবাসার একটা গিফট ।”এরপর ও আস্তে করে পাঞ্চক্লিপ্টা খুলে ফেলল। ওর চুল গুলা পিঠ পর্যন্ত নেমে গেল। আমি একটাও কথা বলছিলাম না। শুধুই দেখছিলাম । ধীরে ধীরে ও টি-শার্টটা উপরে তুলতে লাগলো। সুন্দর একটা ফর্সা স্লিম পেট আমার চোখের সামনে ফুটে উঠল। আস্তে আস্তে ও টি-শার্ট খুলে ফেলল । দেখলাম ও টি-শার্টটার সাথে ম্যাচ করে ব্রা পড়েছিল। মেরুন কালারের টিশার্টের সাথে মেরুন কালারের ব্রা। খুব সুন্দর মানিয়েছিল। আমি অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলাম। একটু পর ব্রা টাও খুলে ফেলল। ব্রা খোলার সাথে সাথে ওর দুধ গুলো বেরিয়ে এল। বেশি বড়ও ছিল না আবার ছোটও না। ওর শরীরের সাথে ফিট ছিল। খানিক বাদে ও ট্রাউজারটাও খুলে ফেলল। ভেতরে আবার ম্যাচ করে প্যান্টিও পড়েছিল। কিছুক্ষণ পর ও সেটাও খুলে ফেলল। পুরো নগ্ন অবস্থায় ওকে অন্যরকম সুন্দর লাগছিল যেন স্বর্গের এক অপ্সরী । আমি সত্যিকারের বিমোহিত হওয়ার অনুভূতিটা অনুভব করছিলাম তখন। আমার কাছে মনে হল আমার পুরো জগৎটা ওর সৌন্দর্যের কাছে এসে থমকে দাড়িয়েছে।ও হাতদুটোকে কোমড়ে রেখে,মাথাটাকে একটু কাত করল একই সাথে ডান পায়ের উপর ভর দিয়ে,শরীরটাকে একটু বাঁকিয়ে দাঁড়ালো । তারপর আমার দিকে হাসিহাসি মুখে তাকিয়ে বলল, “দেখতে কেমন আমি?

” ও পাল্টা প্রশ্ন করলো।–“It’s up to you.” আমি সিম্পলি বললাম। “তোমার দেখাতে ইচ্ছা করলে দেখাবা,দেখব। আর না দেখাতে ইচ্ছা করলে দেখাইয়ো না। সমস্যা নাই।”–তাহলে তো তোমার দেখার কোন ইচ্ছাই নাই। কোন মেয়ে কি ইচ্ছা করে নিজেকে তার বয়ফ্রেন্ড এর সামনে Nude করে নাকি? ” ও হেসে বলল, “এটা হল জেল। লুব্রেকেটিং অয়েল। ছোট্ট রিফাতের জন্যে।” ও খাটের উপর উঠে আমার দুপায়ের মাঝে বসে অয়েলটা আমার বাড়াতে মাখিয়ে দিতে লাগল। মাখাতে মাখাতে বলল, “তোমার বাড়ার লোমগুলা কাটতে পারো না?

”আমি হেসে বললাম, “মাল ছাড়ার পর এটা একটু ছোট হয়ে যায়।”ও হাসতে হাসতে বলল, “খুবই মজার জিনিস তো। একটু আগেও আমি দেখলাম প্রায় ছয় ইঞ্চির একটা এত বড় একটা জিনিস। সেটা এখন মাত্র আড়াই ইঞ্চি হয়ে গেল?

” ও যেন ভীষণ মজার একটা জিনিস দেখছে এমনভাবে ও ছোট্ট রিশাতকে দেখছিল। আমি কিছুই বলছিলাম না। চুপচাপ বসে ওর কাণ্ডকারখানা দেখছিলাম।একটু পর বলল, “এটা আবার কখন মাল ফেলতে পারবে? –তাহলেও খুব বেশি লাভ হবে না। চার পাঁচ মিনিট এদিক সেদিক হতে পারে। পুরা টাংকি খালি।–তোমার স্পার্ম কাউন্ট কিন্তু ভালো। অনেক বেড়িয়েছে।–তাই নাকি?

–হ্যাঁ,দেখি মানে দেখার চেষ্টা করেছিলাম কয়েকবার।–কেন? –দেখে ভাল লাগে না। সবগুলাই একরকম। কোন ভিন্নতা নাই। একঘেয়ে।–“তোমার তাহলে ভিন্নতাও দরকার,না?

” সপ্না চোখ পাকিয়ে আমার দিকে তাকায় বলল।আমি সাথে সাথে বললাম, “না ঠিক তা না, It’s just boring.

Akhi almgir xxx-10Akhi almgir xxx-50Akhi almgir xxx-48

” বুঝলাম ওর কাছে বন্ধের নোটিশটা আগেই চলে এসেছে। ঐদিন ছিল শনিবার। তাই সেদিনই রওয়ানা হলে সাতদিনই আম্মুর সাথে থাকতে পারবো এই ভেবে আমি আর ও দুইজনই ঐ দিনই রওয়ানা দেয়ার প্ল্যান করলাম।টয়লেট কর্ম শেষ করে যখন রুমে আসলাম তখন দেখি শাওন সেই পুরোনো ঘটঘটানি শুরু করছে। ওরে ডাক দিলাম, “শাওন? –হ্যাঁ,পারবো।–তাহলে তুমি আঁক। আঁকা হইলে আমাকে দেখাইও। ঠিক আছে?

One thought on “Akhi almgir xxx”

  1. I will never know anyway 🙂 Travel, surprises, music, dancing, sports, books, last minute plans, open mind, photography, museum, craziness, spontaneity, going out (but also staying in), sharing, simplicity, respect, flip flops (yes, the sandals), down to earth (however fantasy is also very important), people, casual, word, news, work, sense of humor about yourself, awareness.